Press "Enter" to skip to content

জেনেটিক পদ্ধতিতে নতুন ভাবে চিকিৎসা হবে এবার ডায়বেটিক্সের

  • হারমোন দিয়ে পরীক্ষা করে ভাল ফল পাওয়া গেছে
  • রক্তের অভ্যন্তরে গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ গুরুত্বপূর্ণ
  • এর জন্য ইনসুলিন ব্যবহার করা হয়েছে
  • নতুন হরমোনের প্রভাব সফল প্রমাণিত

জাতীয় খবর

রাঁচি: জেনেটিক পদ্ধতিতে প্রতিদিনই নতুন নতুন আবিষ্কার হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় ডায়াবেটিস চিকিৎসার একটি নতুন পদ্ধতিও আবির্ভূত হয়েছে। এর জন্য নতুন উপায় বের করেছেন সল্ট ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। এর মাধ্যমে রক্তে গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণের একটি নতুন উপায় বেরিয়ে আসছে বলে মনে হচ্ছে।

আমরা জানি যে ডায়াবেটিসে, শরীরের অভ্যন্তরে গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকে না কারণ শরীর নিজে থেকে সেগুলিকে ভেঙে ফেলা বন্ধ করে দেয়। এই বিড়ম্বনার কারণে মানুষকে দুটি ওষুধের সাহায্যে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হয়। গুরুতর ক্ষেত্রে, রোগীদের নিয়মিত ইনসুলিন ইনজেকশন নিতে হয়।

এখন বিজ্ঞানীরা জেনেটিক পদ্ধতিতে ইনসুলিনের উপর ভিত্তি করে এই চিকিৎসা পদ্ধতির বিকল্প আবিষ্কার করেছেন। এতে ইনসুলিনের পরিবর্তে অন্যান্য হরমোন ব্যবহার করা হয়। কিছুদিন আগে, সালক ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা একটি নতুন অণু, FGF1 আবিষ্কার করেছিলেন। এটি আকারে ইনসুলিনের অনুরূপ।

জেনেটিক পদ্ধতিতে, নতুন হরমোন ইনসুলিনের অনুরূপ

পরীক্ষায় এটি ইনসুলিনের মতো কাজ করতেও পাওয়া গেছে। অর্থাৎ, যখন এই হরমোনটি ইনজেকশন দেওয়া হয়েছিল, তখন এটি গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছিল। ইঁদুরের পরীক্ষায় এর একটি ইনজেকশন দুই দিনের জন্য কার্যকর বলে জানা গেছে। পরবর্তীতে, এই গবেষণায় এগিয়ে গিয়ে গবেষকরা দেখতে পান যে গ্লুকোজের এই সমস্যাটি কয়েক সপ্তাহ বা মাস ধরে মস্তিষ্কে ইনজেকশনের মাধ্যমে দূর করা যেতে পারে।

কেন এমন হয় তাও বিজ্ঞানীরা পরীক্ষা করে দেখেছেন। জেনেটিক পদ্ধতিতে দেখা গেছে যে এটি আসলে ইনসুলিনের মতো পুরোপুরি কাজ করে না। এর কাজ লিভারের ভিতরে গ্লুকোজ ভেঙ্গে ফেলা নয়। শোঘের গাড়িটি যখন সামনের দিকে এগিয়ে গেল, বিজ্ঞানীরা এটির কাজ দেখে অবাক হয়ে গেলেন।

বিভিন্ন এনজাইম দিয়ে ইঁদুরের উপর পরীক্ষা সফল হয়েছে

ইনসুলিন তার কাজ করার জন্য PDE3B নামক একটি এনজাইম ব্যবহার করে। এর মাধ্যমে এটি ভিতরে লিপোলাইসিসকে বাধা দেয়। অন্যদিকে, এই এনজাইমটি FGF1 দিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছিল, যা অকেজো ছিল। পরে, যখন এর প্রভাব অন্য একটি এনজাইম PDE4 দিয়ে পরীক্ষা করা হয়, তখন একটি নতুন পদ্ধতির পথ খোলা হয়।

এই এনজাইম পথের মাধ্যমে, এই নতুন হরমোন গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছিল। এরপর ধারণা করা হচ্ছে, এই জেনেটিক পদ্ধতির সাহায্যে শরীরে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে একটি নতুন চিকিৎসা পদ্ধতিও আবির্ভূত হতে পারে। ইঁদুরের উপর সফল পরীক্ষার পর, গবেষকরা এখন আরও তদন্ত করছেন।

Spread the love
More from জেনেটিক বিজ্ঞানMore posts in জেনেটিক বিজ্ঞান »
More from স্বাস্থ্যMore posts in স্বাস্থ্য »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *