Press "Enter" to skip to content

দক্ষিণ আফ্রিকায় একদিনে করোনা রোগীর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে

জোহান্সবার্গ : দক্ষিণ আফ্রিকায় একদিনে করোনা রোগীর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। প্রথমবারের মতো ওমিক্রন ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর এখন মানুষের মধ্যে পরীক্ষার গতিও বেড়েছে।

এই কারণে, আরও বেশি লোক এই সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানা গেছে। বুধবার সেখানে ৮৫৬১ জন করোনা রোগী পাওয়া গেছে, যেখানে মঙ্গলবার মোট করোনা রোগীর সংখ্যা পাওয়া গেছে ৪৩৭৩ জন।

যাই হোক, প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে চিকিৎসকরা এই নতুন রূপটিকে আরও সংক্রামক বলে জানিয়েছেন। এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে নিজ নিজ দেশে ফিরে আসা রোগীদের মধ্যেও এই সংক্রমণ পাওয়া গেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রোন ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়েছে

যার ভিত্তিতে বলা হচ্ছে এখন এই ওমিক্রোন ভেরিয়েন্ট শুধু দক্ষিণ আফ্রিকাতেই সীমাবদ্ধ নয়।
কিন্তু যে গতিতে তা দক্ষিণ আফ্রিকায় ছড়িয়ে পড়েছে তাতে আবারও গোটা বিশ্বে করোনার নতুন ঢেউয়ের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

তবে, তাদের অতীত অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে, অনেক দেশ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আগত সকল মানুষকে বিচ্ছিন্ন থাকার নির্দেশনা জারি করেছে এবং কঠোরভাবে তা মেনে চলতে বলেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকায়, একদিনে দ্বিগুণ রোগী পাওয়া গেছে কারণ এই রূপটি এমন একটি এলাকায় সনাক্ত করা হয়েছে যা একটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা বলে মনে করা হয়।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভাইরাস বিশেষজ্ঞ ডাঃ নিক্সি গুমেদে মোইলেতসি বলেন, এর প্রভাব কতটা ছড়িয়েছে, তা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই জানা যাবে।

কারণ অজানা অবস্থায় অনেকেই এর শিকার হয়েছেন। যেহেতু এই করোনা সংক্রমণের লক্ষণগুলি আলাদা, তাই অনেকেই বুঝতেও পারবেন না যে তারা করোনার নতুন রূপের প্রভাবে রয়েছেন।

তদন্ত করেই নিশ্চিত হওয়া যাবে। দক্ষিণ আফ্রিকাতেও এই ভাইরাসে প্রায় নব্বই হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

ডাঃ মোয়েলেতসি আরও বলেছেন যে যেহেতু এই নতুন ভাইরাস ফর্মটিতে খুব কম ডেটা পাওয়া যায়, তাই চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা এর চিকিত্সার জন্য আরও বেশি ডেটার জন্য অপেক্ষা করছেন।

Spread the love

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *