Press "Enter" to skip to content

রোমানিয়ার হাসপাতাল গুলিতে লাশের স্তূপ

বুখারেস্ট: রোমানিয়ার হাসপাতাল গুলিতে এখন লাশের স্তূপ দেখা যাচ্ছে। এই দেখে স্পষ্ট হয়ে গেছে যে রোমানিয়া করোনা মহামারীর চতুর্থ দফায় ভুগছে। প্রকৃতপক্ষে, রোমানিয়ার হাসপাতাল গুলিতে আগে থেকে করা ব্যবস্থার চেয়ে মৃতদেহের সংখ্যা বেশি হওয়ায় এই ধরনের লাশের স্তূপ হয়ে যাওয়ায় যত দ্রুত সম্ভব তাদের কবর দেবার চেষ্টাও চলছে যুদ্ধের ভিত্তিতে।

তা সত্ত্বেও, স্বাস্থ্যসেবা পরিকাঠামোর তুলনায় করোনায় মৃতের সংখ্যা বেশি হওয়ায় সবকিছু ঠিকঠাক হচ্ছে না। রোমানিয়ার বুখারেস্ট ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের মর্গে ১৫টি মৃতদেহ রাখার ব্যবস্থা রয়েছে। গতকাল এখানে একসঙ্গে ৪১ জন মারা গেছেন।

এ কারণে এখন হাসপাতালের অন্য এলাকায় লাশের স্তূপ রাখা হয়েছে যাতে দ্রুত সম্ভব করব দেওয়া যায়। প্রতিটি মৃতদেহকে প্লাস্টিকের বস্তায় ঢেকে রাখা দরকার যাতে সংক্রমণ না ছড়ায়। এ জন্য স্বাস্থ্যকর্মীরও অভাব রয়েছে।

নিহতদের পরিবারের সদস্যদের দূর থেকে লাশ দেখতে দেওয়া হয়েছে। সংক্রমণে মারা যাওয়ায় তার শেষকৃত্যও আলাদাভাবে করা হচ্ছে। এই হাসপাতালের নার্স ক্লডিয়া ইওনিটা বলেন, তিনি যখন চাকরি শুরু করেছিলেন, তখন স্বপ্নেও ভাবেননি যে তাকে এমন দিন দেখতে হবে। এখন পরিবারের সবার লাশ একবারে কবরে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। এটি একটি হৃদয় বিদারক ঘটনা।

রোমানিয়ার হাসপাতাল গুলির বেশির ভাগ বেডে এখন কোরোনা রোগী

রোমানিয়ার বেশিরভাগ হাসপাতালের বেশিরভাগ শয্যাই এখন করোনা রোগী ভর্তি। তাদের অধিকাংশের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিকে, এই তথ্যটিও সামনে এসেছে যে, অনেক ভ্রান্ত ধারণা ও গুজবের কারণে সারা দেশে টিকাদানের পরিস্থিতি খুবই গুরুতর। এখন পর্যন্ত মাত্র ৩৬ শতাংশ মানুষ করোনার ভ্যাকসিন প্রয়োগ করেছেন।

ভ্যাকসিন প্রয়োগ না করার পেছনে নানা ধরনের কুসংস্কার ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে নানা তথ্য। এ বিষয়ে ডাঃ আলেকজান্দ্রা মুনতিয়ানু বলেন, তিনি টিকাদানের দায়িত্বে আছেন এবং সেখানে কম লোকের উপস্থিতির আসল কারণ হচ্ছে গুজব। তবে শুধু মাত্র রোমানিয়ার এই অবস্থ্যা নয়।

ইউরোপের অনেক দেশে আবার থেকে কোরোনা সংক্রমন দেখা দেবার পর সরকার সতর্ক হয়েছে। কিছূ দেশে আবার থেকে লকডাউনের ঘোষণা করা হয়েছে। ফ্রাণ্স এখনও লকডাউন লাগায় নি তবে ভ্যাকসিন নিয়ে  সেথানেও নিয়ম কড়া করা হয়েছে। 

Spread the love
More from HomeMore posts in Home »
More from কোরোনাMore posts in কোরোনা »
More from নতূন খবরMore posts in নতূন খবর »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *