Press "Enter" to skip to content

মিশরের শহরাঞ্চলে বিছের আক্রমণে তিনজন নিহত হয়েছে

আসওয়ান: মিশরের শহরাঞ্চলে আকস্মিকভাবে বিছেদের আক্রমণের খবর পাওয়া গেছে।

শহর এলাকায় আকস্মিক বিছেদের আগমন ও তাদের কামড়ে এখন পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যু

হয়েছে বলে জানা গেছে। আসলে ঝড় ও প্রবল বর্ষণের পর এমন অবস্থা হয়েছে এই আসওয়ান

শহর ও অন্যান্য এলাকায়। বন্যার কারণে নীল নদের জল অনেক এলাকায় প্রবেশ করেছে।

এর পরে, ঝড়ের সময় ঘন ঘন বজ্রপাতের পরে, মিশরের শহরাঞ্চলে প্রচুর বিছে পাওয়া যায়।

ঝড়ের সময় বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে অন্ধকারে ঘরে বসেই বিছের দংশনের শিকার হয়েছেন

অনেকে। তিনজনের মৃত্যু ছাড়াও ৪৫৩ জন আহত হয়েছেন, যারা বর্তমানে চিকিৎসাধীন

রয়েছেন। হঠাৎ করে বিছের দংশনে আক্রান্ত রোগীর আগমনের কারণে এখন বেশিরভাগ

চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীকে করোনা রোগীর চেয়ে বিছের দংশনে আক্রান্তদের চিকিৎসায় বেশি

নজর দিতে হচ্ছে। মিশরের শহরাঞ্চলে বিছেদের এই আকস্মিক আক্রমণ সম্পর্কে পরিবেশ

বিজ্ঞানীরা মনে করেন, অতিবৃষ্টি ও প্রবল ঝড়ের পাশাপাশি বজ্রপাতের কারণে বন্য প্রাণী ও

কীটপতঙ্গ তাদের প্রাকৃতিক আবাসস্থল ছেড়ে উদ্ধারের জন্য বেরিয়ে আসে। এর মধ্যে বিছে

ঢুকতে শুরু করেছে শহরাঞ্চলে। যেহেতু শহুরে এলাকায় এত বিছে দেখতে পাবে বলে আশা

করেনি মানুষ। রাতের অন্ধকারে আর ইলেক্ট্রিসিটী না থাকায় অনেক মানূষ বিছের কামড়

খেয়েছে। প্রায় পাঁচ শত লোকেদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

মিশরের শহরাঞ্চলে এই হামলার কথা মানুষ জানত না

এ কারণে মানুষ বিছের হুঙ্কারের শিকার হয়। এত স্টিং ভিকটিম আসার পর সরকারি পর্যায়ে

সব এলাকায় অ্যান্টি ভেনম ওষুধের অতিরিক্ত ডোজ পাঠানো হচ্ছে। লোকেদের বর্তমানে

পাহাড় এবং জঙ্গলযুক্ত এলাকার কাছাকাছি যেতে নিষেধ করা হয়েছে কারণ এটি বিশ্বাস করা

হয় যে বিছে সহ সাপ নিজেদের বাঁচাতে তাদের স্থায়ী বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে। মিশরীয়

চর্বিযুক্ত লেজযুক্ত বিছে সম্পর্কে জানা যায় যে একটি মাত্র হুল এক ঘন্টার মধ্যে একজন

মানুষকে মেরে ফেলতে পারে।

Spread the love
More from নতূন খবরMore posts in নতূন খবর »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *