Press "Enter" to skip to content

সমুদ্র উদ্ভিদ থেকে ক্ষুধা নিরসনের নতুন প্রস্তুতি

জাতীয় খবর,

রাঁচী ঃ সমুদ্র উদ্ভিদ থেকে ক্ষুধা নিরসনের নতুন প্রস্তুতি| ক্ষুধা মেটাতে এবং পুষ্টিকর খাবার

সরবরাহের জন্য করা যেতে পারে| প্রথমবারের মতো, ব্যবসায়িক পরীক্ষাও এই দিকে শুরু

হয়েছিল| সমুদ্র গাছগুলি ইতিমধ্যে খাদ্য হিসাবে বিক্রি করা হয়েছে| তবে এর বিস্তৃত স্কেলে ক্ষুধা

মেটাতে এর ব্যবহার এখন প্রকাশ্যে এসেছে| অন্যথায়, শুধুমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একই বাজারে,

একই পণ্যগুলি গত তিন বছরে প্রায় পাঁচ ট্রিলিয়ন ব্যবসা করেছে| এখন যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি

স্টার্টআপ সংস্থা ওসানিয়াম বিস্তৃত আকারে চেষ্টা করার প্রস্তুতি শুরু করেছে| তারা মানুষের

খাদ্যের জন্য সামুদ্রিক আগাছা ব্যবহার করার জন্য পরিবেশ বান্ধব প্রযুক্তি বিকাশ করছে| এই

গবেষণার সাথে যুক্ত লোকেরা আশাবাদী যে তাদের প্রসেসিং সামুদ্রিক গাছপালা থেকে কম খরচে

বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষকে পুষ্টিকর খাবার সরবরাহ করতে সক্ষম হবে| এই হাইপোথিসিসটি

বাস্তবায়ন করেছেন ড| চার্লি বাবিংটন বিশ্বাস করেন যে বিশ্বের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার মধ্যে

সমুদ্রের আগাছা কেবল খাদ্যই তৈরি করা যায় না, তবে সাগরের প্রাকৃতিকভাবে সমুদ্রের

উদ্ভিদের আরও ভাল চাষ করা যায়| এটি একই সাথে অনেক সমস্যার সমাধান করা হবে| তারা

বিশ্বাস করে যে সামুদ্রিক আগাছা বহু স্তরেও সামুদ্রিক জীবনকে সঙ্কট সৃষ্টি করছে| এমন

পরিস্থিতিতে, তাদের খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করা এই সঙ্কট সমাধানের সহজ উপায় হবে|

অন্যদিকে, মানুষ যখন সত্যিই এটিকে তাদের পুষ্টিকর খাদ্য হিসাবে গ্রহণ করবে, তখন এর

চাহিদা বাড়ার পরে সমুদ্রের ইতিমধ্যে তার সমস্ত আবাদযোগ্য পরিবেশ থাকবে| সুতরাং চাহিদা

বাড়ার সাথে সাথে এর চাষাবাদও বাড়বে| যদি সমুদ্রের উদ্ভিদের খাবার তৈরি করা হয়, তবে

তাদের চাষও করা হবে, এটি মানুষের ক্ষুধার আরও ভাল বিকল্প প্রদান করবে, পাশাপাশি এর

কারণে সামুদ্রিক জীবনে প্রতিকূল প্রভাবগুলি কাটিয়ে উঠতে পারে|

সমুদ্র জীবন বাঁচানোর জন্য বায়ুমণ্ডলের কার্বন সহায়ক

প্রমাণিত হয়েছে যে এই আগাছাগুলির দ্রুত বর্ধনের কারণে করোল বন অনেক অঞ্চলে ক্ষয় হচ্ছে|

প্রবাল বন না থাকায় বহু ধরণের সমুদ্রের প্রাণীর অস্তিত্বও হুমকির মধ্যে রয়েছে| এটি বৈজ্ঞানিক

গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে এই জাতীয় সামুদ্রিক গাছগুলি অর্থাত্ আগাছার প্রচুর পুষ্টিগুণ

রয়েছে| সুতরাং, কেবলমাত্র তাদের প্রক্রিয়াজাতকরণের প্রয়োজন যাতে তারা মানুষের খাদ্য

বিভাগের অধীনে আসে| এই প্রচেষ্টাটিকেও গুরুত্ব সহকারে নেওয়া হচ্ছে কারণ এটি ঘটলে

সমুদ্রের কার্বন নিঃসরণও নিয়ন্ত্রণ করা হবে| অর্থাত, এই প্রক্রিয়া একদিকে মানুষের ক্ষুধা দূর

করবে এবং অন্যদিকে এটি সামুদ্রিক জীবন বাঁচানোর পাশাপাশি বায়ুমণ্ডলে কার্বন নিঃসরণের

পরিমাণ হ্রাসে সহায়ক হিসাবে প্রমাণিত হবে| এটি একটি প্রমাণিত বৈজ্ঞানিক সত্য যে ভিজে

আগাছা যাকে সী ৱুড বলা হল সে কি নিজের ভিতরে ৪৭ কেজি কার্বন শোষণ করে? এটি

পৃথিবীতে কার্বন সংশ্লেষণের এক একর সমান| এই প্রক্রিয়াটির সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা বিশ্বাস করেন

যে যখন চাহিদা বেশি হবে এবং এই সমুদ্রের কাঠ চাষ করা হবে তখন সমুদ্রের তল পরিষ্কার

রাখবেন এবং অননুমোদিত মাছ শিকার এই চাষের জন্যও প্রতিরোধ করা হবে| এটি সমুদ্রের

সাথে সমুদ্র এবং বিশ্বের পরিবেশকেও উপকৃত করবে|

সমুদ্র থেকে আরও ভাল পুষ্টিকর খাবার পাবেন মানুষ

শুধু সমুদ্র নয় পুরো পরিবেশটি উপকৃত হবে আজ আমরা যেভাবে জমিতে বন কাটার ফলে

ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি, একই অবস্থা মাছ শিকার এবং সমুদ্রের অভ্যন্তরে অন্যান্য কারণেও| এটি

প্রতিরোধে সমুদ্রের আগাছা বৈজ্ঞানিকভাবে চাষ সহায়ক হবে কারণ মানুষেরাও সমুদ্র থেকে

আরও ভাল পুষ্টিকর খাবার পাবেন| এই সমুদ্রের আগাছাটির বিশেষত্ব হ’ল এতে বিভিন্ন ধরণের

ভিটামিন, খনিজ, প্রোটিনের পাশাপাশি মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট রয়েছে| যার বেশিরভাগই অ্যান্টি

অক্সিড্যান্ট| অতএব, তাদের খাদ্যগুলি কেবল মানুষের ক্ষুধা মেটাবে না তবে মানবদেহের রোগ

প্রতিরোধ ক্ষমতাও বিকাশ করবে| বৈজ্ঞানিক মূল্যায়ন ২০৫০ সাল নাগাদ, পৃথিবীতে এখন থেকে

৫০ থেকে ৭০ শতাংশ বেশি খাবারের প্রয়োজন হবে| এমন পরিস্থিতিতে সমুদ্রকে ক্ষেত হিসাবে

বিবেচনা করে, খাদ্য চাষ প্রতিটি দৃষ্টিকোণ থেকে আরও ভাল বিকল্প হিসাবে প্রমাণিত হবে| এটি

জমিতে অতিরিক্ত বোঝা হ্রাস এবং সার থেকে ক্ষতি হ্রাস করবে| বিশ্বে খাবারের নামে প্রোটিনের

অভাব দেখা যাচ্ছে, এটি সমুদ্রের নতুন খাবারও কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবে| অর্থাত্ প্রতিটি

পর‌্যায়ে সমুদ্রের কৃষিকাজের মাধ্যমে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগও খোলা হবে, যা সরাসরি

খাদ্য চেইনের সাথে যুক্ত হবে|

More from HomeMore posts in Home »
More from নতূন খবরMore posts in নতূন খবর »

5 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *