Press "Enter" to skip to content

ত্রিপুরায় নির্বাচনের আগে বিজেপি বড় ধাক্কা খেয়েছে

  • মাথা কামানোর পর বিজেপি ছাড়লেন বিধায়ক

  • মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল খেলা শুরু করে

  • এক ডজনেরও বেশি বিধায়ক কে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে

  • মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধে বিজেপি বিধায়ক

গুয়াহাটি: ত্রিপুরায় নির্বাচনের আগে বিজেপি বড় ধাক্কা খেয়েছে।টিএমসি ২০২৩ সালের বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে প্রস্তুত।আসলে,

বাংলার ভবানীপুরে জয়ের পর, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জাতীয় রাজনীতিতে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন এবং টিএমসি এটা স্পষ্ট করে দিয়েছে।কংগ্রেসে যোগ দেবে।দুর্গা পূজার পর আবার খেলা হোবে ত্রিপুরায়।ত্রিপুরার সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধে দলীয় হাইকমান্ড

কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় বিজেপির বেশ কয়েকজন সিনিয়র বিধায়ক দল ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন।এদিকে, ত্রিপুরায় তৃণমূলের সম্ভাবনার কথা বলতে গিয়ে দলের সাংসদ সৌগত রায় বলেন, “বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধে পাল্টে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেখানে

খুব জনপ্রিয় মুখ। ত্রিপুরার নির্বাচনের আগে বিজেপি বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে। উত্তরে ত্রিপুরার সৌরমা থেকে বিধায়ক আশীষ দাস মঙ্গলবার কলকাতার কালীঘাট কালী মন্দিরে মাথা

কামিয়ে বিজেপি ছাড়ার ঘোষণা দেন। মাথা মুণ্ডন করার পর, তিনি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ি থেকে খুব দূরে কলকাতার একটি বিখ্যাত মন্দির, কালীঘাট মন্দিরেও যজ্ঞ করেছিলেন।

ত্রিপুরায় নির্বাচনের আগেই টিএমসি সক্রিয় হয়ে ওঠে

বিজেপি ছাড়ার আগে মঙ্গলবার ত্রিপুরার বিধায়ক আশীষ দাস মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাংলার জননী মাটি মানুশের আসল নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, ভবিষ্যতে প্রধানমন্ত্রী হলে এটা প্রত্যেক বাঙালির জন্য গর্বের বিষয় হবে।তিনি বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হলেন মা,

মাটি, মানুশের আসল নেতা।ভবানীপুর নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে রেকর্ড জয়লাভ করেছেন তা তার বিপুল জনপ্রিয়তার আরেকটি প্রমাণ।তিনি বলেন, ভবানীপুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে জিতেছেন, তাতে বোঝা যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একদিন দেশের

কমান্ড নিজের হাতে নেবেন।ভবানীপুরে দুর্দান্ত বিজয় তাকে বিরোধী দলগুলোর মুখ হয়ে ওঠার পথ সুগম করবে।তিনি বলেছিলেন যে, দেশের স্বাধীনতার জন্য বাংলা অনেক অবদান রেখেছে

কিন্তু রাজনৈতিক অঙ্গনে এটি এত বছর ধরে যেভাবে প্রাপ্য ছিল তাতে স্বীকৃতি পায়নি।তিনি বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি দেশের প্রধানমন্ত্রী হন, তাহলে সেটা হবে বাঙালির প্রতি ন্যায়বিচার।আসুন আমরা জানিয়ে দিই যে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের

জয়ের পর ত্রিপুরায় টিএমসি ক্রমাগত শক্তি বৃদ্ধি করছে।ত্রিপুরায় টিএমসির সরকার গঠনের পূর্ণ আশা আছে।এটি ২০২৩ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিপ্লব দেবের বিজেপি সরকারকে

ক্ষমতা থেকে ক্ষমতাচ্যুত করার জন্য একটি প্রচারণা শুরু করেছে।তবে, এখানে, তৃণমূলের ত্রিপুরা পরিকল্পনার প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বিজেপি বাংলার সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “তৃণমূল

কংগ্রেসের ত্রিপুরা এবং বাংলার বাইরে কোন ঘাঁটি নেই।সেই রাজ্যের সমস্ত তৃণমূল নেতা সাম্প্রতিক অতীতে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন।

More from HomeMore posts in Home »
More from দেশMore posts in দেশ »
More from নতূন খবরMore posts in নতূন খবর »
More from রাজনীতিMore posts in রাজনীতি »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *