Press "Enter" to skip to content

বাংলাদেশে করোনায় আড়াই কোটি মানুষ দরিদ্র হয়েছে

  • নিজস্ব প্রতিনিধি

ঢাকা : বাংলাদেশে করোনায় আড়াই কোটি মানুষ দরিদ্র হয়েছে।করোনা মহামারি বিশ্ব

অর্থনীতি থমকে গিয়েছে। এশিয়া নয়, উন্নত দেশগুলোর অর্থনীতিও নিম্নমুখী। কর্মহারা হচ্ছে

লাখো মানুষ। বেকারত্বকে সহ্য করতে না পেরে কেউ কেউ আত্মহননের পথ বেচে নিয়েছেন।

বাংলাদেশের মতো উদীয়মান অর্থনীতির দেশেও কর্মহীনতা দেখা দিয়েছে। করোনা সংক্রমণ

এবং লকডাউনে উপার্জন বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এ অবস্থায় বিপাকে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ।

নিম্ন আয়ের বিভিন্ন পেশার ৩০ লাখ মানুষকে আর্থিক সহায়তা দেয়ার কথা ঘোষণা করেছেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।সম্প্রতি শেষ হওয়া একটি সমীক্ষা বলছে, করোনার প্রভাবে নতুন

করে আড়াই কোটি মানুষ দরিদ্র হয়েছে। বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার অ্যান্ড

পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অফ গভর্ন্যান্স অ্যান্ড

ডেভেলপমেন্টের (বিআইজিডি) এক যৌথ সমীক্ষায় এ তথ্য ওঠে আসে। গত বছর হঠাৎ করে

করোনার প্রাদুর্ভাভ বেড়ে গেলে ৬৬ দিন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। সেই ধাক্কায় কাটিয়ে

না ওঠতেই দ্বিতীয় ঢেউ সব কিছু তছনছ করে দেয়। এতে দারিদ্র্যের হার দ্বিগুণ বৃদ্ধি পায়।

তৃতীয় দফা লকডাউন ২৮ মার্চ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। জরুরি পণ্য ও সেবা কার্যক্রমের বাইরে

সবকিছু বন্ধ রয়েছে। একারণে দৈনিক আয়ের ওপর নির্ভরশীল মানুষের টিকে থাকা কঠিন। এ

অবস্থায় অনেকেই পরিবার-পরিজন নিয়ে দুর্ভাবনায় পড়েছেন। বাড়লো লকডাউন অভ্যন্তরীণ

উড়ান চলবে।

বাংলাদেশে করোনায় মৃত্যুর গ্রাফ কিছুটা কমতে শুরু করেছে

করোনার ত্রাসের মধ্যে চলমান লকডাউন আরেক ধাপ বেড়ে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়েছে।

বুধবার মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ এসংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। এতে পূর্বের বিধি নিষেধগুলো

বহাল থাকছে। এদিন মৃত্যু কমে ৯১’তে নেমে এসেছে। তবে, দু’সপ্তাহ লকডাউন পালনের পর

সুফল মিলবে, এমন আশা জনবিশেষজ্ঞদের। অভ্যন্তরীণ রুটে বন্ধ থাকা উড়ান ফের সচল হবে

বুধবার। কারণা রুখতে ৩ এপ্রিল থেকে অভ্যন্তরীণ উড়ান চলাচল স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক তৌহিদুল আহসান বিষয়টি নিশ্চিত করে

বলেছেন, আমরা আশা করছি সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে সকাল থেকেই অভ্যন্তরীণ রুটে সীমিত

পরিসরে উড়ান চালু হবে। লকডাউনে ৫ দেশে প্রবাসী কর্মীদের পৌঁছে দিতে ৫টি দেশে বিশেষ

উড়ান চালু করেছে সরকার। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হচ্ছে চীন। ২৪ এপ্রিল থেকে দেশটির

দুটি এয়ারলাইন্সের পাশাপাশি বাংলাদেশের এয়ারলাইন্সগুলো চীনে ফ্লাইট পরিচালনা করা হতে

পারে। কয়েকদিন যাবত করোনার ছোঁবলে মৃত্যু সংখ্যা ছিলো শ’র ওপরে। সর্বশেষ সোমবার

১১২ জনের মৃত্যু হয়েছিলো। মঙ্গলবার তা কমে শ’ নিচে নেমে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে

৯১জনে। এনিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১০ হাজার ৫৮৮ জনে। একই সময়ে ২৭ হাজার

৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৫৫৯ জন। শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৮৫

শতাংশ। তবে সুস্থতার হার বেড়েছে। এদিন সুস্থ হয়ে ওঠেছেন ৬ হাজার ৮১১ জন। মোট

শনাক্ত ৭ লাখ ২৭ হাজার ৭৮০ জন। মঙ্গলবার মারা যাওয়া ৯১ জনের মধ্যে পুরুষ ৫৮ জন ও

নারী ৩৩ জন। যার মধ্যে ঢাকা বিভাগেই রয়েছেন ৬০ জন। চট্টগ্রামে ১৭, রাজশাহীতে ৩,

খুলনায় ৫, বরিশালে ৪, রংপুরে ২জন। মৃতদের বয়স বিবেচনায় ষাটোর্ধ্ব ৫৪ জন, ৫১ থেকে

৬০ এর মধ্যে ১৮ জন, ৪১ থেকে ৫০ এর মধ্যে ১১ জন, ৩১ থেকে ৪০ এর মধ্যে ৭ জন, ১১

থেকে ২০ এর মধ্যে ১ জন রয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর সংবাদ কার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে।

More from এশিয়াMore posts in এশিয়া »
More from নতূন খবরMore posts in নতূন খবর »
More from বাংলাদেশMore posts in বাংলাদেশ »

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *