Press "Enter" to skip to content

মশার জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য নতুন ব্যবস্থা

  • ফ্লোরিডায় জেনেটিকপরিবর্তনের মশার বিরোধ ছিল
  • জেনেটিক পরিবর্তন মানুষকে প্রভাবিত করবে, বড় প্রশ্ন
  • মশা জেনেটিক বৈশিষ্ট্য নিয়ে নতুন পদ্ধতির সাথে জন্ম নেবে

জাতীয় খবর,

রাঁচি: মশার জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য নতুন ব্যবস্থা | জেনেটিক পরিবর্তন একটি প্রতিষ্ঠিত

বৈজ্ঞানিক কৌশল| এর বিভিন্নটি ব্যবহার করা  হচ্ছে এবং বিশেষত এর ভূমিকা মানব

রোগগুলির চিকিত্সার ক্ষেত্রে পাওয়া গেছে| কিন্তু যখন ফ্লোরিডায় মশা’র সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে

জেনেটিকালি মডিফিকেশন করা মশা ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত  নেওয়া হয়েছিল, তখন অনেকে

এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছিলেন| যারা বিরোধিতা করেছিল তারাও অসত্য ছিল না|

তাদের যুক্তি ছিল যে পরবর্তী প্রজন্মে জেনেটিক পরিবর্তন দ্বারা প্রস্তুত মশা’র প্রভাব সম্পর্কে

বিজ্ঞানীদেরও ধারণা নেই| এ জাতীয় পরিস্থিতিতে আমরা একটি অজানা বিপদকেও আমন্ত্রণ

জানাতে পারি, যা পরবর্তীতে মানুষকে আচ্ছন্ন করতে পারে| অন্যদিকে, এটিও যুক্তিযুক্ত হয়েছে

যে জিনগত পরিবর্তনের ফলে মশা বা অন্য জীবনের সংস্পর্শে আসা মানুষের মধ্যে জিনগত

পরিবর্তন ঘটবে না ব্রিটিশ সংস্থা অক্সিটেককে এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল| বিতর্ক হওয়ার পরে

এই ভয় কাটিয়ে উঠতে মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা একটি নতুন উপায় আবিষ্কার

করেছেন| জেনেটিক্যালি প্রস্তুত মশার সাহায্যে তারা এখন মশার জনসংখ্যা হ্রাস করার কৌশল

চালু করছে| তাদের গবেষণায়, মশারা পরীক্ষাগারে জেনেটিকভাবে প্রস্তুত করা হবে যা কয়েকটি

বিশেষ বৈশিষ্ট্য সহ প্রলম্বিত হবে| অন্যদিকে, পরীক্ষাগারে প্রস্তুত হওয়ার কারণে তাদের মধ্যে

জিনগত পরিবর্তনের কৃত্রিম বিতর্ক কাটিয়ে উঠতে পারে|

মশার সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা জেনেটিক বৈশিষ্ট্যযুক্ত মশায় নেয়

এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মাজেজ মাসেলকো তাঁর সহকর্মী শিব দাস এবং অধ্যাপক

মিশেল স্মাঙ্কির অনুমানকে এগিয়ে নিয়ে এসেছেন| বিশেষ জেনেটিক বৈশিষ্ট্যযুক্ত এই জাতীয় মশা

মশার সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না| অর্থাত্, যখন তারা মহিলা মশার সংস্পর্শে আসবে তখন

কোনও বংশবৃদ্ধি হবে না| ফ্লোরিডার লোকেরা বলেছিল যে পুরো প্রক্রিয়াটিতে পুরুষ মশার মধ্যে

একটি বিশেষ জিন প্রবেশ করা হয়| এই পরিবর্তিত জিনটি মানুষের উপর কী প্রভাব ফেলতে

পারে সে সম্পর্কে কোনও বৈজ্ঞানিক গবেষণা হয়নি| অন্যদিকে, এই পরিবর্তিত জিনের সাথে

মশার পরিবর্তে জিনগত পরিবর্তনের সাথে মশারা জন্মগ্রহণ করলে তারা স্বাভাবিকভাবে একই

জিনে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে চলে যায়| যার কারণে নতুন প্রজাতির মশার একটি নির্দিষ্ট ধরণের

প্রোটিনের সাথে জন্মের কারণে অকালে মারা যায়| এই অবিচ্ছিন্ন প্রবণতার কারণে

স্বাভাবিকভাবেই মশা’র সংখ্যা কমতে থাকে| তবে বিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছেন যে এর মধ্যেও

মশা’র সংখ্যা বন্ধের দিকে এক বিশাল বাধা রয়ে গেছে| স্ত্রী মশা যখন বৃদ্ধির ক্রমে জন্মগ্রহণ

করে, তখন এই জাতের জনসংখ্যা না বাড়ানোর গুণে তারা ক্ষতবিক্ষত হয় না| সুতরাং

গবেষকরা গবেষণাকে ক্রোমোজোমের স্তরে দুটি পর‌্যায়ে উন্নত করেছিলেন| এর মধ্যে একটি ছিল

পুরুষ মশা’র পরবর্তী প্রজন্মের জন্য মহিলা মশা’র সংস্পর্শে আসার ক্ষমতা রোধ করা|

মশার দুটি পদ্ধতির সহায়তায় মশার সংখ্যা বাড়তে পারে

অন্যদিকে, দ্বিতীয় পদ্ধতিতে, পুরুষরা বাকি থাকলেও পরবর্তী প্রজন্মের মহিলা মশা মারা যায়|

এই দুটি পদ্ধতির সাহায্যে এই কৌশলটির মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নেওয়া তার সহায়তায়

মশা’র সংখ্যা বাড়তে পারে, যা সাধারণ মানুষের উপর কোনও উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলবে না|

এই কৌশলটির মাধ্যমে মশার ডিমও কোনও নির্দিষ্ট অঞ্চলে স্থানান্তরিত করা যায়, যেখানে

মশা’র সংখ্যা খুব বেশি| ডিমগুলি থেকে ডিম ছাড়ার পরে, জেনেটিক সম্পত্তি দ্বারা

প্রাকৃতিকভাবে সেগুলি আঘাত করবে, যা মশার জনসংখ্যাকে স্বাভাবিক ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে

থাকবে| নর্থ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ম্যাক্স স্কট বলেছেন যে এটি একটি চতুর

পদ্ধতি, যার মধ্যে জিনগতভাবে পরিবর্তিত মশার পরিবর্তে প্রাকৃতিক জিন নিয়ে জন্ম নেওয়া

মশা জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করবে| ল্যাবরেটরিতে এই অত্যন্ত পরিশীলিত পদ্ধতি ব্যবহার করে

২৯৩২ মশা উত্পাদিত হয়েছিল| তাদের মধ্যে একটি মাত্র মহিলা মশা ছিল| তবে পরীক্ষাগারে

মশা’র জন্ম হয় তবে ল্যাবইয়ে জনিত মশার প্রশ্ন উঠতে পারবে না, ক্যালিফোর্নিয়া

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ওমর আকবাড়ি এই প্রশ্ন তুলেছেন| তাঁর মতে, এ জাতীয় মশা

বাড়তে পারে না তা পরীক্ষা করে গ্রহণ করা যায় না| অতএব, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে ওলবাচিয়া

পদ্ধতি ব্যবহার করার কথা রয়েছে| এই পদ্ধতিটি ইতিমধ্যে বহু ধরণের ভাইরাসের বিস্তার রোধ

করতে ব্যবহৃত হয়েছে|

More from দেশMore posts in দেশ »
More from বিজ্ঞানMore posts in বিজ্ঞান »
More from হোমMore posts in হোম »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *